বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১৪ আশ্বিন, ১৪২৯, ২ রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪
বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২

টুঙ্গিপাড়ায় মন্দিরের জমি নিয়ে বিরোধ, দুই পক্ষের সংঘর্ষে নিহত-১, আহত-০৫

টুঙ্গিপাড়ায় মন্দিরের জমি নিয়ে বিরোধ, দুই পক্ষের সংঘর্ষে নিহত-১, আহত-০৫

গোপালগঞ্জ : গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় দুর্গা মন্দিরের জমি নিয়ে বিরোধের জেরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে সুবল শিকদার (৫৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

এতে আহত হয়েছে আরও পাঁচ জন। আহতদের টুঙ্গিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারী) সন্ধ্যায় টুঙ্গিপাড়া উপজেলার পাটগাতী ইউনিয়নের কাকইবুনিয়া গ্রামের সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরের সামনে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

টুঙ্গিপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এ কে এম সুলতান মাহমুদ সংঘর্ষের নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহত সুবল শিকদার টুঙ্গিপাড়া উপজেলার পাটগাতী ইউনিয়নের কাকইবুনিয়া গ্রামের মৃত নিশিকান্ত শিকদারের ছেলে।

নিহত সুবল শিকদারের ভাতিজা বিপিন শিকদার বলেন, আমার কাকা সুবল শিকদার এই মন্দিরে জায়গা দান করেন কিন্তু ভাইস চেয়ারম্যান ও তার লোকজন প্রভাব খাটিয়ে মন্দির কমিটিতে আমার কাকাকে রাখেন নাই। এটি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।

ওসি এ কে এম সুলতান মাহমুদ প্রত্যক্ষদর্শীরে বরাত দিয়ে জানান, ওই গ্রামের সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরের ৫১ শতাংশ জমি নিয়ে টুঙ্গিপাড়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অসীম কুমার বিশ্বাসের সাথে একই গ্রামের মিলন শিকদারের সাথে বিরোধ চলে আসছিল।

সন্ধ্যার দিকে পাটগাতী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহসিলদার ওই মন্দিরের ৫১ শতাংশ জমি নিয়ে চলমান মামলার তদন্ত করতে যায়। এসময় ভাইস চেয়ারম্যান অসীম কুমার বিশ্বাসের লোকজনের সাথে মামলার বাদী মিলন শিকদারের লোকজনের মধ্যে কথা কাটাকাটির ঘটনা ঘটে।

এর জের ধরে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে। সংঘর্ষে মামলার বাদী মিলন শিকদারের কাকাতো ভাই সুবল শিকদারসহ ৫ জন গুরুতর আহত হন। পরে সুবল শিকদারকে মারাত্মক আহতাবস্থায় টুঙ্গিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ওসি আরো জানান, পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য গোপালগঞ্জ ২৫০-শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


error: Content is protected !!