সোমবার, ২৩ মে, ২০২২, ৯ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯, ২১ শাওয়াল, ১৪৪৩
সোমবার, ২৩ মে, ২০২২

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মুজিব কোট উপহার দিয়ে সম্মানিত করলেন সাংসদ ইকবাল হোসেন অপু

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মুজিব কোট উপহার দিয়ে সম্মানিত করলেন সাংসদ ইকবাল হোসেন অপু

শরীয়তপুর: ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের শোষন নিপীড়ন থেকে বাংলার মানুষকে মুক্তি দেওয়ার জন্য এবং স্বাধীন সোনার বাংলা, জাতীয় পতাকা, জাতীয় সংগীত, ও বাংলাদেশের স্বাধীন মানচিত্রের জন্য যারা জীবনের মায়া ত্যাগ করে স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়ে আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন সেই বীর সন্তান, জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মুজিব কোট উপহার দিয়ে সম্মানিত করেছেন শরীয়তপুর ১ আসনের সংসদ সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ইকবাল হোসেন অপু।

গত ৯ই মার্চ বুধবার থেকে শরীয়তপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমির মাঠে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে শুরু হয়েছে প্রায় ১মাস ব্যাপী বঙ্গবন্ধু মেলা-২০২২। ঐ দিনই শরীয়তপুর জেলার সদর উপজেলা ও জাজিরা উপজেলার ১২০ জন জাতির শ্রেষ্ট সন্তান, জাতির বীর সন্তান, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মুজিব কোট উপহার দিয়েছেন সাংসদ ইকবাল হোসেন অপু।

জানা গেছে, শরীয়তপুর ১ আসনের সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন অপু ইতিমধ্যে তার নির্বাচনী এলাকা পালং ও জাজিরা থানার বেশ কয়েকজন মৃত্য বরনকারী বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ভাষাসৈনিকদের কবর নির্মান বা মেরামত করার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। এছাড়াও পালং ও জাজিরা থানার বেশ কিছু সড়কের নামকরণ ভাষা সৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে করা হবে বলে সাংসদ ইকবাল হোসেন অপু সিন্ধান্ত গ্রহণ করছেন। ইতি মধ্যে তার কিছু বাস্তবায়নও হয়েছে।

সাংসদ ইকবাল হোসেন অপু বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, তাদের জন্য কিছু করতে পারলে নিজেকে ধন্য ও সৌভাগ্যবান মনে হয়। আমরা মন্ত্রী, এমপি, জজ, ডিসি, এসপি হতে পারবো কিন্তু আমরা কেউ চাইলেই মুক্তিযোদ্ধা হতে পারবো না। বীর মুক্তিযোদ্ধারা তাদের জীবনের মায়া ত্যাগ করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে দেশ স্বাধীন করার জন্য যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে আমাদের এই বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন ভূখণ্ড দিয়েছে। আমরা শরীয়তপুরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু মেলা-২০২২ এর আয়োজন করেছি। এই মেলার শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যাতে শরীয়তপুর সদর ও জাজিরা উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধারা মুজিব কোট পড়ে অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পারে সেই লক্ষ্যে পালং ও জাজিরা উপজেলার ১২০ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে মুজিব কোট উপহার দিয়ে সম্মানিত করে নিজেকে ধন্য মনে করছি।


error: Content is protected !!