রবিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯, ২ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪
রবিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২২

অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, ১৪ জনকে জেল-জরিমানা

ছবি: আটককৃত বালু শ্রমিক
গোসারহাট : শরীয়তপুর গোসাইরহাট উপজেলায় অভিযান চালিয়ে কোদালপুর জয়ন্তী নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে ১৪ জনকে অর্থদণ্ড ও বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বৃহস্পতিবার (২৬ মে) সকাল ৬ টায় ৪ জনকে ১০ দিন ও ১০ জনকে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ৫০ হাজার অর্থদন্ড অনাদায়ে আরও ১ মাস কারাদন্ড দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ভারপ্রাপ্ত ইউএনও সুজন গুপ্ত দাশ।
বালু উত্তোলনের দায়ে মোঃ তরিকুল (২৬) নবু হোসেন(২৭), মাহাবুব আলম(২৫),আফজাল হোসেন (৩৫),আবুল বাসার চানমিয়া (৪২), স্বপন (৪০) মনির হোসেন (২০),আলি আকবর (২৫),মোঃ রাসেল (৩১), মোঃ ইউসুফ (৪৮), মোকলেছ(২৭), মোঃ হাসান (২২), মোঃ জসিম (২২), মোঃ ইউসুফ হালদার(২২) সাজা দেওয়া হয়।
সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার ভোর ৬টায় উপজেলার কোদালপুর ইউনিয়নের জয়ন্তী নদীতে র‍্যাব – ৮ ব্যাটালিয়ন মাদারীপুর জেলা থেকে ডিএডি মনির হোসেনের সহ ৮জন সদস্য ও গোসাইরহাট থানা পুলিশ ২ জন সদস্য সহ একটি সক্রিয় টিম অংশগ্রহণ করেন যৌথ অভিযান চালিয়ে ১৪ জন বালু শ্রমিককে বালু উত্তোলনের সময় আটক করা হয় এবং ৭টি বালু উত্তোলনের ড্রেজার জব্দ করা হয়। জব্দকৃত ড্রেজার ধ্বংস করা হয়।
এ ব্যাপারে গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ভারপ্রাপ্ত  ইউএনও সুজন গুপ্ত দাশ বলেন, যেহেতু জয়ন্তী নদী শরীয়তপুর জেলার ৫৫ কিলোমিটার অংশে কোনও বালু মহাল নেই কাজেই জেলার যেখান থেকেই বালু উত্তোলন করা হোক তাই অবৈধ। আমারা প্রতিনিয়ত এ অবৈধ কাজ থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করছি।
তিনি জানান,উপজেলার বিভিন্ন মহল থেকে জানতে পারি দীর্ঘদিন একটি কুচক্রী মহল অবৈধভাবে একাধিক ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তলন করে আসছে যার ফলে নদীর দুপাড়ে ফসলি জমী ভাঙনের কবলে পড়েছে যা সম্পূর্ন বেআইনি ও গুরুত্বর অপরাধ। এ ধরনের অপরাধ করলে সে যতই ক্ষমতাসীন হোক তাকো আইনের আওতায় এনে শাস্তি দেওয়া হবে। তবে এটা বন্ধ করতে হলে জনগণকে আরও সচেতন ও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে।

error: Content is protected !!