শুক্রবার, ১ জুলাই, ২০২২, ১৭ আষাঢ়, ১৪২৯, ১ জিলহজ, ১৪৪৩
শুক্রবার, ১ জুলাই, ২০২২

জাজিরার ৩০ জেলে পেলো গরুর বাছুর ও ভ্যান উপহার।

জাজিরার ৩০ জেলে পেলো গরুর বাছুর ও ভ্যান উপহার।

শরীয়তপুর : শরীয়তপুর জাজিরা উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়নে ২১-২২ অর্থবছরে মৎস্য অধিদপ্তরের ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা প্রকল্প এবং দেশীয় প্রজাতির মাছ ও শামুক সংরক্ষণ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায়, নিবন্ধনকৃত ৩০ জন হতদরিদ্র জেলেদের মাঝে গরু (বকনা বাছুর) ও ভ্যান বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৬ মে) দুপুর সাড়ে ১২ টায় জাজিরা উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে, জাজিরা উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তর কর্তৃক, উপজেলার জাজিরা, পালেরচর, বিলাসপুর, কুন্ডেরচর, বড়কান্দি, পূর্ব নাওডোবা, মূলনা, সেনেরচর, বি.কে নগর ইউনিয়ন এলাকার হতদরিদ্র ১৫ জন ইলিশ জেলেদের মাঝে বকনা গরুর বাছুর ও দেশীয় প্রজাতির মাছ এবং শামুক সংরক্ষণকারী ১৫ জন জেলেদের ভ্যান বিতরণ করা হয়।

জেলেদের মাঝে গরুর বাছুর ও ভ্যান বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কামরুল হাসান সোহেল, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা প্রণব কুমার কর্মকার, জাজিরা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আবুল বশার, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রুবেল বেপারী সহ অন্যান্যরা।

জাজিরার জাহাঙ্গীর বেপারী, বি.কে নগরের সোবাহান খলিফা, সেনেরচরের ইদ্রিস হাওলাদার সহ কয়েকজন জেলেরা জানান, গরুর বাছুর পেয়ে আমরা খুবই আনন্দিত। এ গরুর বাছুর পেয়ে আমরা জাটকা ইলিশ ও মা ইলিশ সংরক্ষণে আরো উদ্বুদ্ধ হয়েছি। আমরা সরকার ঘোষিত ইলিশ নিধন নিষিদ্ধ সময়, ইলিশ মাছ ধরা থেকে বিরত থাকব।

এছাড়াও মূলনার আলী হোসেন, বিলাসপুরের সিরাজ সারেং, নাওডোবার আজগর বেপারী সহ অন্যান্যরা ভ্যান পেয়ে খুবই আনন্দিত। তারা জানান, সরকার ঘোষিত নিষিদ্ধ সময়ে মাছ ধরা থেকে বিরত থেকে আমরা ভ্যান চালিয়ে নির্বিঘ্নে সংসার চালাতে পারবো। আমাদের আর সমস্যা থাকবে না।

জাজিরা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আবুল বশার বলেন, সরকার ঘোষিত নিষিদ্ধ সময় জেলেরা যাতে, জাটকা ইলিশ ও মা ইলিশ ধরা থেকে বিরত থাকে। সেই লক্ষ্যে নিবন্ধনকৃত উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে ৩০ জন হতদরিদ্র জেলেদের মাঝে বকনা গরুর বাছুর ও ভ্যান বিতরণ করা হয়েছে। আশাকরি জেলেদের দুঃসময়ে এগুলো অনেক উপকারে আসবে।


error: Content is protected !!