শুক্রবার, ১ জুলাই, ২০২২, ১৭ আষাঢ়, ১৪২৯, ১ জিলহজ, ১৪৪৩
শুক্রবার, ১ জুলাই, ২০২২

শরীয়তপুরে আশ্রায়ণ প্রকল্পের ভেঙে ফেলা ঘরসহ ভূমিহীনদের গৃহ পরিদর্শন করলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক।

শরীয়তপুরে আশ্রায়ণ প্রকল্পের ভেঙে ফেলা ঘরসহ ভূমিহীনদের গৃহ পরিদর্শন করলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক।

শরীয়তপুর : শরীয়তপুর জাজিরা উপজেলার পশ্চিম নাওডোবা এলাকায় গৃহহীনদের জন্য তৃতীয় পর্যায়ে নির্মিত ঘর পরিদর্শন ও শরীয়তপুর সদর উপজেলার চিতলিয়া ইউনিয়নের ভেঙে ফেলা নির্মাণাধীন ঘর পরিদর্শন করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক মোহাম্মদ ফিজনুর রহমান।

সোমবার (৩০ মে) সকাল দশটায় জাজিরা উপজেলার পশ্চিম নাওডোবা ইউনিয়নে গৃহহীনদের জন্য বরাদ্দকৃত ৬৫ টি ঘরের মধ্যে নির্মিত ২৮ টি তৈরিকৃত ঘর পরিদর্শন করে এর গুনাগুন যাচাই করেন। এরপর তিনি শরীয়তপুর সদর উপজেলার চিতলিয়া ইউনিয়নে গৃহহীনদের জন্য নির্মিত ভেঙে ফেলা ঘর টি পরিদর্শন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল হাসান সোহেল, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মন্দীপ ঘরাই, জাজিরা উপজেলা প্রকৌশলী মো. ইমন মোল্লা, সদর ও জাজিরা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম, নাওডোবা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন ঢালী, স্থানীয় মেম্বার সহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

কাজের মান নিয়ে উপকারভোগীরা খুবই সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করেন। ঘর প্রাপ্তরা আরো জানান, আগে আমাদের থাকার মত ঘর ছিল না, অন্যের বাড়ীতে আশ্রয়হীন অথবা ভাড়া থাকতে হত। এখন প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘর পেয়ে আমাদের জীবনটা পাল্টে গেছে। নিজেদের একটা ঠিকানা হয়েছে।

উল্লেখ্য গত ২৬ মে শরীয়তপুর সদর উপজেলার চিতলিয়া ইউনিয়নে টুমচর এলাকার ১২ নং চিতলিয়া মৌজার ভূমিহীনদের আশ্রয়ন প্রকল্পের নির্মাণাধীন কাজে বাধা দেয়া ও ভাঙচুর সহ শ্রমিকদের মারপিটের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় সিরাজ সরদার এর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় পালং মডেল থানায় মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রধান আসামী সিরাজ সরদারকে গতকাল গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ সকালে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

অভিযুক্ত ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ভূমিহীনদের জন্য চিতলিয়া ইউনিয়নের টুমচর এলাকায় একটি আশ্রয়ন প্রকল্প তৈরি হচ্ছে। ২৬ মে বৃহস্পতিবার সেই নির্মাণ কাজে বাধা দেয় স্থানীয় সিরাজ সরদার। কাজ বন্ধ না করায়, ঐদিন সন্ধ্যা ৭ টার দিকে নির্মাণাধীন ঘরের দেয়াল ভেঙ্গে ফেলে এবং শ্রমিকদের মারধর করে রক্তাক্ত জখম করে। মারধরের ঘটনায় নীলফামারী জেলার নির্মাণ শ্রমিক শাকিল হোসেন (৩০) ও চিতলীয়া ইউনিয়নের ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ আব্দুস সাত্তার মিঞা বাদী হয়ে ৫ জনের নাম উল্লেখ পূর্বক অজ্ঞাত ৫/৭ জনকে আসামি করে পালং মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। আসামিরা হলেন সিরাজ সরদার (৬৫), আবুল কালাম সরদার (৫৫), নজরুল ইসলাম সরদার (৩০), আল ইসলাম সরদার (২৮), দিন ইসলাম সরদার (২২) সহ অজ্ঞাত ৫/৭ জন।

মামলার বাদী শাকিল হোসেন জানান, আমরা অন্য জেলা থেকে এখানে কাজ করতে এসেছি। জায়গা কার সেটা আমাদের বিষয় না। আমাদের কাজ করতে বলা হয়েছে, তাই আমরা কাজ করেছি। কিন্তু অন্যায় ভাবে আমাদের উপর হামলা করে কয়েক জনকে আহত করেছে। তাই আমরা মামলা করেছি।

পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আক্তার হোসেন জানান, আশ্রায়ণ প্রকল্প নির্মাণ কাজে শ্রমিকদের মারধরের ঘটনায় দু’টি মামলা হয়েছে। এ মামলার প্রধান আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকী আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।


error: Content is protected !!