বকেয়া টাকার দাবিতে মার্চে এশিয়ান টিভি ঘেরাও

196

ঢাকা: বেসরকারি স্যাটেলাইট চ্যানেল এশিয়ান টিভির সাবেক কর্মীদের বকেয়া পাওনা আদায়ের লক্ষ্যে মার্চের প্রথম সপ্তাহে প্রতিষ্ঠানটির নিকেতন অফিস ঘেরাও ও লাগাতার অবস্থান কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকার সাংবাদিক নেতারা। আজ সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন থেকে এ ঘোষণা দেন তারা।

মানববন্ধনে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে), বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) এবং ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ)-এর বর্তমান ও সাবেক নেতারা বক্তব্য রাখেন।

ডিইউজে’র সভাপতি আবু জাফর সূর্য বলেন, ‘এশিয়ান টিভির সাবেক কর্মীরা দীর্ঘদিন ধরে বকেয়া টাকার জন্য আন্দোলন করছে। আমি আমার সংগঠনের নেতাদের নিয়ে এ বিষয়ে চেয়ারম্যান হারুন-অর রশিদের সঙ্গে তার অফিসে বৈঠক করেছি। তিনি আমাকে টাকা পরিশোধের আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু প্রায় তিন মাস পরও এই আশ্বাস আলোর মুখ দেখেনি। আমি আজকের এই মানববন্ধন থেকে স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই- সংবাদকর্মীদের ন্যায্য টাকা আদায়ে যতদিন প্রয়োজন ততোদিন আমরা রাজপথে থাকব। অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে যেভাবে ন্যায্য পাওনা আদায় করা হয়েছে, এশিয়ান থেকেও সেভাবে তা আদায় করা হবে।’

ডিইউজে’র সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী বলেন, ‘গণমাধ্যমকর্মীরা আজ একটি কঠিন সময় পার করছে। বিনা কারণে তাদের চাকরিচ্যুত করা হচ্ছে, মেটানো হচ্ছে না বকেয়া পাওনা। বাধ্য হয়ে আমাদের রাস্তায় দাঁড়াতে হচ্ছে। আমি এশিয়ান টিভির মালিকপক্ষকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলতে চাই- আমাদেরকে কঠোর আন্দোলনের দিকে ঠেলে দেবেন না। এখনো সময় আছে, কর্মীদের ন্যায্য পাওনা বুঝিয়ে দিন, নইলে যে পথে গেলে দাবি আদায় হয়, সে পথেই যাব আমরা’।

বিএফইউজে’র মহাসচিব শাবান মাহমুদ বলেন, ‘বর্তমান সরকার সাংবাদিকবান্ধব। সরকার গণমাধ্যমকর্মীদের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিতে খুবই ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করে। তাই কর্মীদের ন্যায্য পাওনা পরিশোধের কোনো বিকল্প নেই। যে যত ক্ষমতাবানই হোক না কেন, আন্দোলনের কাছে নতি স্বীকার করতেই হবে।’

ডিইউজে’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন বলেন, যেভাবে সাম্প্রতিক প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার কর্মীদের ন্যায্য দাবি আদায় করা হয়েছে, সেভাবে এশিয়ান টিভির কাছ থেকেও আমরা টাকা আদায় করব। কর্মীদের রুটি-রুজি নিয়ে কাউকে নয়-ছয় করতে দেওয়া হবে না।’

ডিআরইউ’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক শুক্কুর আলী শুভ বলেন, ‘সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ থাকলে মালিকপক্ষ বকেয়া পাওনা পরিশোধে বাধ্য হবে। ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নসহ বিভিন্ন সংগঠন আগের মতো এবারও নিপীড়িত ও বঞ্চিত কর্মীদের পাশে রয়েছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে।’

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকা সাব এডিটরস কাউন্সিলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ। এশিয়ানের কাছ থেকে সব বকেয়া আদায় না করার আগে কেউ ঘরে ফিরবে না বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

মানববন্ধনটি পরিচালনা করেন এশিয়ান টিভির সাবেক কর্মী শাহাদাত হোসেন মিথুন চৌধুরী।

এশিয়ান টিভির অন্তত ৬০ জন কর্মী প্রতিষ্ঠানটির কাছে ৬০ লাখ টাকার বেশি পাওনা রয়েছে বলে মানববন্ধনে অংশ নেওয়া কয়েকজন জানান।

এ বিষয়ে চ্যানেলটির চেয়ারম্যান হারুন-অর-রশিদ ও মানবসম্পদ বিভাগে কয়েকবার যোগাযোগ করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।