ডামুড্যায় ছেলের লাঠির আঘাতে মা আহত, ছুড়ির আঘাতে ভাই ও ভাবি মারত্মক জখম

ডামুুুুড্যা:শরীয়তপুর ডামুড্যা উপজেলায় ধানকাটি ইউনিয়নে মোল্লাকান্দি গ্রামে ছেলের লাঠির আঘাতে মা আহত ও ছুড়ির আঘাতে ভাই ও ভাবি মারত্মক জখম হয়েছে।

সোমবার ১৪ সেপ্টেম্বর বেলা ১১ টায় ছেলেদের লাঠির আঘাতে মা অর্মত বেগম আহত হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয় এবং ভাই মোস্তাফিজুর রহমান ও ভাবি পপি আক্তার ছুড়ির আঘাতে মারাত্মক জখম হওয়ায় তাদের শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, চরমালগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ের দপ্তরি আব্দুল মালেক সরদার ২০১৯ ইং সালে ব্রেইন স্ট্রোক করে মারা যায়, মারা যাওয়ার পূর্বে তার পেনশনের টাকার নমিনী হিসেবে শতভাগ অধিকার দিয়ে যায় তার স্ত্রী অর্মত বেগমকে। মারা যাওয়ার পর তার পেনশনের টাকা উত্তোলণ করতে গেলে তার ছেলেরা তাকে টাকা উত্তোলন করতে বাধা দেয়। টাকা উত্তোলণ করলে সেই টাকার ভাগ নেওয়ার জন্য তার মাকে তারা চাপ প্রয়োগ শুরু করে, টাকা তার ছেলেদের এখন দিতে অস্বীকৃতি জানালে ৩ ছেলে এসে সকালে তার মাকে মারধর করতে গেলে মেঝ ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান ও তার স্ত্রী পপি আক্তার বাধা দিতে আসলে পরে তাদের ছুড়ি দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে ও মারধর করে, এতে তারা মারাত্মক জখম হয়। তিন ছেলেরা হলো বড় ছেলে উজ্জ্বল (৩৫), সেঝো ছেলে মেহেদী(২৫) ও ছোট ছেলে বায়েজিদ (২০)।

মা অর্মত বেগম কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, আমার ছেলেরা আজ আমার স্বামীর টাকার জন্য আমাকে মারধর করেছে, আমি আর কিছু বলতে পারবো না!

আহত মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমার মাকে আমার ভাইয়েরা মারতে গেলে আমি আমার মাকে রক্ষা করতে গেলে ওরা আমাকে এলোপাথাড়ি মারধর ও কুপিয়ে জখম করে।

আহত পপি আক্তার বলেন, আমার স্বামীকে ওরা মারতে গেলে আমি ওদের মারতে নিষেধ করলে ওরা উল্টো আমাকে কুপিয়ে জখম করে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত উজ্জ্বল, মেহেদী ও বায়েজিদের সাথে যোগাযোগ করতে গেলে তাদের বাড়ি গিয়ে পাওয়া যায়নি।

ডামুড্যা থানার ওসি তদন্ত এমারাত হোসেন জানান, এ রকম কোন ঘটনার অভিযোগ এখনো থানায় আসেনি, আসলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।