বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০, ১৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, ১৬ রবিউস সানি, ১৪৪২
বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০

শরীয়তপুর পৌরসভার মেয়র পদে আলহাজ্ব এড. আলমগীর মুন্সী মনোনয়ন প্রত্যাশী

শরীয়তপুর পৌরসভার মেয়র পদে আলহাজ্ব এড. আলমগীর মুন্সী মনোনয়ন প্রত্যাশী

শরীয়তপুর: শরীয়তপুর পৌরসভা নির্বাচনে এড. আলমগীর মুন্সী আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে এড. আলমগীর মুন্সী জন সমর্থনে এগিয়ে আছেন। তিনি দীর্ঘ ৩২ বছর যাবৎ শরীযতপুর পৌরবাসীর পাশে থেকে জনসেবা করে যাচ্ছেন। ১৯৮৪ সালে নড়িয়া সরকারী কলেজে লেখাপড়া অবস্থায় জাতীয় বীর কর্নেল শওকত আলী এমপি’র হাত ধরে ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী হিসাবে রাজনীতি শুরু করেন। এরপর ১৯৮৮ সালে শরীয়তপুর পৌরসভায় এসে জননেতা ইকবাল হোসেন এমপি’র নেতৃত্বে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন গড়ে তোলেন। ১৯৯০-এর গণ আন্দোলন শরীয়তপুর জেলা ছাত্রলীগের প্রথম সারীতে থেকে নেতৃত্ব দেন এবং শরীয়তপুর জেলা ছাত্রলীগকে সু-সংগঠিত করেন। তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০৩ এবং ২০০৩ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত দুই মেয়াদে শরীয়তপুর জেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদকের দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে পালন করেন। বর্তমানে জেলা আওয়ামীলীগের কার্যকরী সদস্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি দলের দূর্দিনের কর্মী হিসাবে এবং সাধারণ গরীব দুঃখী মানুষের কাছে মুন্সী ভাই হিসাবে অতিপরিচিত একজন মানুষ। রাজনৈতিক জীবনে তিনি স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে একবার এবং বিএনপি জামাত বিরোধী আন্দোলনে ২য় বার কারাবরন করেন। তিনি একজন সফল আইনজীবী। বর্তমানে জিপি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। শরীয়তপুর জেলা রেড-ক্রিসেন্ট সোসাইটির ৩য় বারের মত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করার মাধ্যমে গরীব দু:খী মানুষের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

তাছাড়া শরীয়তপুর জেলা কমিউনিটিং পুলিশের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে থেকে পুলিশ ও জনগনের মধ্যে সু-সম্পর্ক তৈরী করে জনকল্যানে মাদক ও সন্ত্রাস নির্মূলে কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়া শরীয়তপুরের বিভিন্ন ধর্মীয়, সামাজিক, সংস্কৃতিক ও ক্রীড়া ক্ষেত্রে ব্যাপক পৃষ্টপোষকতা করে যাচ্ছেন। মুন্সী পরিবারে ১০ ভাই এর মধ্যে তিনি ৬ষ্ঠতম সন্তান।

এড. আলমগীর মুন্সীর মাতা একজন রত্নগর্ভা মাতা হিসাবে পরিচিত। তারা পাঁচ ভাই আইন পেশায় নিয়োজিত আছেন। তিনি শরীয়তপুর আওয়ামীলীগের লড়াই সংগ্রামে এবং প্রতিটি নির্বাচনে নিজকে সম্পৃক্ত রেখে পৌরবাসীর একজন প্রিয় মানুষ এবং জননেতা হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।

তিনি শরীয়তপুর পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হলে জনগণের পাশে থেকে আজীবন সেবা করার প্রত্যাশা ব্যাক্ত করেন।