বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০, ১৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, ১৬ রবিউস সানি, ১৪৪২
বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০

শরীয়তপুরে মুক্তিযোদ্ধাকে পেটালেন ইউপি সদস্য

শরীয়তপুরে মুক্তিযোদ্ধাকে পেটালেন ইউপি সদস্য

শরীয়তপুর: শরীয়তপুর ভেদরগঞ্জ নারায়নপুর বাজারের সরকারি জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ও বাজারের আইনশৃঙ্খলা কমিটিতে নাম না রাখায় নুরুল ইসলাম খান (৭০) নামে এক মুক্তিযোদ্ধাকে বেধরক পিটিয়ে আহত করেছেন নারায়নপুর ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড সদস্য মোঃ রফিকুল ইসলাম মোড়ল। তিনি ও তার ভাই দুলাল মোড়লসহ ১০ জনে মিলে প্রতিপক্ষ মুক্তিযোদ্ধার ছেলে জহিরুল ইসলাম শিপন, বাজার ব্যাসায়ী বাবুল রাঢ়ীকে মারধর করে।

শুক্রবার রাত সাড়ে ৭ টায় উপজেলার নারায়ণপুর বাজারে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। খবর পেয়ে ভেদরগঞ্জ থানা পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

রফিকুল ইসলাম মোড়ল ও তার ভাই দুলাল মোড়লদের বিরুদ্ধে থানায় একাধিক সন্ত্রাসী মামলা রয়েছে বলে জানা গেছে।

আহত মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম খান জানান, গিয়াস উদ্দিন মাষ্টার ও রফিকরা বাজারের সরকারি খাস খতিয়ানের জমি ও টোল ঘরের জায়গা বিক্রি করে দেয়। ক্রেতা আলী হোসেন সরদার পাকা স্থাপনা করতে গেলে বাজারের সভাপতি বাবুল রাঢ়ী বাধা দেন ও বাজারের আইনশৃঙ্খলা কমিটিতে তাদের নাম না রাখায়, এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রফিকুল ইসলাম মোড়ল ও তার ভাই দুলাল মোড়লরা বাজার সভাপতিকে বেধরক পিটিয়ে আহত করে। এ সময় আমি ও আমার ছেলে বাধা দিতে গেলে তারা আমাকে ও আমার ছেলেকে মারধর করে।

বাজার ব্যবসায়ী সভাপতি বাবুল রাড়ী বলেন, বাজারের সরকারি জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ও বাজারে আইনশৃঙ্খলা কমিটিতে রফিক মেম্বারের নাম না রাখায়, সে আমাকে ডেকে এনে মারধর করে। এ সময় মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম খান ও তার ছেলে জহিরুল ইসলাম শিপন তাদের বাধা দিতে এলে তাদেরও তারা মারধর করে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মোঃ রফিকুল ইসলাম মোড়লের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

ভেদরগঞ্জ থানার ওসি এবিএম রাশেদুল বাড়ি বলেন, অভিযোগ শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর-আল-নাসীফ জানান, এমন একটি ঘটনা আমি শুনেছি, শুনার পর থানায় অভিযোগ করতে বলেছি। আমার কাছে লিখিত অভিযোগ করলে তদন্ত করে দোষি প্রমাণিত হলে অভিযুক্ত ইউপি সদস্যর বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে মুক্তিযোদ্ধার ওপর এ ন্যাক্কারজনক হামলার নিন্দা জানিয়েছেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নেতারা। বিচার দাবি করেছেন তারা।