বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০, ১৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭, ১৬ রবিউস সানি, ১৪৪২
বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০

ভেদরগঞ্জে ২ শিশু হত্যা মামলায় সৎ মা সহ গ্রেফতার-৩

ভেদরগঞ্জে ২ শিশু হত্যা মামলায় সৎ মা সহ গ্রেফতার-৩

ভেদরগঞ্জ: শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার রামভদ্রপুর ইউনিয়নে ৪নং ওয়ার্ড পাঁচালিয়ায় দুই বোন ছোয়া মনি(৯) ও তোয়া মনি(৭) হত্যা মামলার ৩ আসামীকে গ্রেফতার করেছে ভেদরগঞ্জ থানা পুলিশ।

গত ৬ নভেম্বর ছোয়া-তোয়া’র রহস্য জনক হত্যার পর বুধবার রামভদ্রপুর ইউনিয়নের পাঁচালিয়া গ্রামের শুকুর মৃধার বাড়ি থেকে ঐ অভিযুক্ত ৩ আসামীকে গ্রেফতার করা হয়। এ ব্যাপারে বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত, শরীয়তপুর মামলা রেকর্ড করা হয়। মামলা নং সি আর ৫৬ ভেদরগঞ্জ, শরীয়তপুর। তবে ময়না তদন্তের রিপোর্টে পাওয়া যায় বিশাক্ত কেমিকেলর কারণে ছোয়ামনি ও তোয়ামনির মৃত্যু হয়।

ঘটনার বিবরণ সূত্রে, নিহত শিশুদের বাবা শুকুর মৃধা বাদী হয়ে তার ২য় স্ত্রী সূর্যমনি ও তার মা-বাবা ডলি বেগম(৫০), কালামিয়া হাওলাদার(৬০)’র বিরুদ্ধে ১২ই নভেম্বর ৩০২/১০৯/ ও ৩৪ ধারায় একটি মামলা করেন বিজ্ঞ আদালতে। পরে আদালত ভেদরগঞ্জ থানার ইন-চার্জকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ফৌজদারী কার্যবিধি ১৭৩ ধারানুযায়ী ব্যাবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেয়। সে অনুযায়ী গত বুধবার আসামী সূর্যমনিকে ও তার মা-বাবাকে গ্রেপ্তার করে ভেদরগঞ্জ থানা পুলিশ। পরের দিন বৃহস্পতিবার তাদের শরীয়তপুর জেলা কারাগারে প্রেরণ করে দেয়া হয়।

শুকুর মৃধা ও তার বোন ফরিদা বলেন, আমার ভাতিজি ছোয়া-তোয়া মনি কে আমার ভাবি সূর্যমনি (২৩) তার মা ডলি বেগম(৫০), কালামিয়া হাওলাদার(৬০) মিলে সিরাপ ঔষধের সাথে বিষ মিষিয়ে দুই বোনকে খাওয়ায়। পরে তাদের আর্তচিৎকার শুনতে পেয়ে আসে পাশের মানুষ আসলে ভেদরগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে যাই। কর্মরত চিকিৎসক তাৎক্ষণিক শরীয়তপুর হাসপাতালে পাঠায়। শরীয়তপুর হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক ছোয়া মনি-তোয়া মনি দুজনকে মৃত্যু বলে ঘোষণা করেন। আমরা এ হত্যার আসামীর সঠিক বিচার চাই।

এ বিষয় প্রতিবেশী সুমন সরদারের মেয়ে সাবরিনা (৫) বলেন, আমার বান্ধবী ছোয়া মনি ও তেয়া মনি আমার সাথে আমার বাসায় খেলছিল। হঠাৎ ওর সৎ মা এসে আমাদের নিয়ে যায় ছোয়ামনিদের বাড়ি। পরে ছোঁয়া মনি ও তোয়া মনিকে ওর মা সিরাপ খাওয়ায়। পরে ওরা ২ বোন অনেক কষ্টে কান্নাকাটি করতে থাকে। তার পরে শুনি ছোয়ামনি ও তোয়ামনি মরে গেছে। শিশু সাবরিনা ওর বান্ধবী ছোয়ামনি তোয়ামনির হত্যার বিচার চায়।

এ ব্যাপার ভেদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম বাড়ী বলেন, নিহতদের বাবা এ বিষয় আদালতে একটি মামলা দায়ের করে। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী পরে ১৮ই নভেম্বর বুধবার রাতে অভিযুক্ত ঐ ৩ আসামী গ্রেফতার করে ১৯ই নভেম্বর শরীয়তপুর জেলা কারাগারে প্রেরণ করি।