রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১, ২২ ফাল্গুন, ১৪২৭, ২২ রজব, ১৪৪২
রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১

ডামুড্যা পৌর নির্বাচনে আ. লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর ১৭ সমর্থকের বিরুদ্ধে মামলা

ডামুড্যা পৌর নির্বাচনে আ. লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর ১৭ সমর্থকের বিরুদ্ধে মামলা

ডামুড্যা: শরীয়তপুরের ডামুড্যা পৌরসভা নির্বাচনের আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রেজাউল করিম রাজা ছৈয়ালের ১৭ সমর্থকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। হামলা করার অভিযোগে মামলাটি করেছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী কামাল উদ্দিন আহমেদের ছেলে কাউসার আহমেদ। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মামলাটি ডামুড্যা থানায় নথিভুক্ত করা হয়েছে। ওই মামলায় বিদ্রোহী প্রার্থী রেজাউল করিমের তিন ভাইসহ তাঁর সমর্থকদের আসামি করা হয়েছে।

রেজাউল করিম রাজা ছৈয়াল অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী কামাল উদ্দিন আহমেদের সমর্থকেরা গত সোমবার তাঁর প্রচারণায় হামলা করেন। তাতে তাঁর সমর্থক মো. আসাদ, অন্তু ছৈয়াল, নাহিদ ছৈয়াল, আজাদ ছৈয়াল ও রতন ছৈয়াল আহত হয়েছেন। কিন্তু হয়রানি ও প্রচারণা বাধাগ্রস্ত করার জন্য তাঁদেরসহ ১৭ সমর্থককে আসামি করে মামলা দেওয়া হয়েছে।

ডামুড্যা থানা ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ১৪ ফেব্রুয়ারি ডামুড্যা পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. কামাল উদ্দিন আহমদ, আর দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজা ছৈয়াল। এ ছাড়া বিএনপির প্রার্থী মো. নাজমুল হক সবুজ মিয়া এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী আলমগীর হোসেন।

গত সোমবার স্বতন্ত্র প্রার্থী রেজাউল করিম রাজা ছৈয়াল পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম কুলকুড়ি এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণায় যান। সন্ধ্যা সাড়ে পাঁচটার দিকে তার প্রচারণার ওপর হামলা করা হয়।
আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রেজাউল করিম অভিযোগ করেন, নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া ও প্রতীক বরাদ্দের পর স্থানীয় সাংসদ নাহিম রাজ্জাক পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে কাজ শুরু করেন। তিনি তিন দফা ঢাকা থেকে ডামুড্যা এসে নেতা-কর্মীদের নিয়ে সভা করেন। সভাগুলোতে তিনি নৌকা প্রতীকে ভোট চান। এ বিষয়ে তিনি নির্বাচন কমিশনে ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেছেন।

বিদ্রোহী প্রার্থী রেজাউল করিম রাজা ছৈয়াল বলেন, ‘আমার নেতা-কর্মীদের হয়রানি করার জন্য মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে। আর প্রচারণায় বের হলেই হামলা করা হয়। পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসন নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন না করে আমার বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নিচ্ছে।’

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. কামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘স্বতন্ত্র প্রার্থী রেজাউল করিম রাজার সমর্থক আসাদ গত সোমবার আমার সমর্থকদের ওপর হামলা করেছে। এ কারণে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। আর কোনো প্রার্থীর প্রচারণায় বাধা দেওয়া হচ্ছে না। কারও ওপর কোনো হামলাও করা হয়নি।’

ডামুড্যা পৌরসভা নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এইচ এম গোলাম মোস্তফা বলেন, সব প্রার্থী যাতে নির্বিঘ্নে প্রচারণা চালাতে পারেন, তার ব্যবস্থা করার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আর কোনো প্রার্থী যাতে হয়রানির শিকার না হন, তার ব্যবস্থাও নির্বাচন কার্যালয় থেকে করা হচ্ছে। আচরণবিধি প্রতিপালনের জন্য পৌর এলাকায় দুজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন।

ডামুড্যা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এমারত হোসেন বলেন, মারামারির ঘটনার বিষয়ে দুই পক্ষের দুটি অভিযোগ এসেছিল। একটি অভিযোগ নথিভুক্ত করা হয়েছে। আরেক পক্ষের অভিযোগ তদন্ত করা হচ্ছে।


error: Content is protected !!