বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১, ৯ বৈশাখ, ১৪২৮, ৯ রমজান, ১৪৪২
বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে রাষ্ট্রপ‌তি ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে শ্রদ্ধা

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে রাষ্ট্রপ‌তি ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে শ্রদ্ধা

গোপালগঞ্জ : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০১-তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় রাষ্ট্রপ‌তি ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে বঙ্গবন্ধুর সমা‌ধি সৌধ বেদীতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

পরে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে বাংলাদেশে স্বাধীন হতো না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও চেতনা ধারন করে বাংলাদেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রেখেছে আওয়ামী লীগ।

অাজ বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের পক্ষে রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম সালাউদ্দিন ইসলাম ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল নকিব আহমেদ চৌধুরী বঙ্গবন্ধুর সমা‌ধি সৌধ বেদী‌তে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এসময় বেজে ওঠে বিগউলের সুর। রাষ্ট্রীয় সালাম দেন তিন বাহিনীর একটি চৌকস দল। পরে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাত করেন।

এরপর কেন্দ্রীয় অাওয়ামী লী‌গ প্রে‌সি‌ডিয়াম মেম্বার লে: ক‌র্ণেল (অব:) ফারুক খান, এম‌পি’র নেতৃত্বে দলীয় সভাপ‌তির পক্ষে ও পরে কেন্দ্রীয় অাওয়ামী লীগের পক্ষে বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানানো হয়। পরে জেলা ও উপজেলা অাওয়ামী লীগ, সহযোগী সংগঠন এবং বি‌ভিন্ন সামা‌জিক-সাংস্কৃ‌তিক সংগঠ‌নসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ প্রিয় নেতাকে শ্রদ্ধা জানান।

এ সময় কেন্দ্রীয় অাওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহা‌ঙ্গীর ক‌বির নানক, শাজাহান খান এম‌পি, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক এ.ফ.ম বাহাউদ্দিন নাসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজসহ কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপ‌স্থিত ছিলেন।

পরে বঙ্গবন্ধু সমাধি সৌধ কমপ্লেক্স চত্বরের বকুল তলায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজনে গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসন স্কুল এন্ড কলেজের ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী অনুশা এঞ্জেল এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শিশু সমাবেশে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় শিশুদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হানিরা। এরপর তিনি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। এসময় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপি।, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: সায়েদুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা উপস্থিত ছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য লে: কর্ণেল (অব:) ফারুক খান বলেন, বঙ্গবন্ধু দেশ প্রেম যে অনন্য দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন, সেটা সর্বকালে শুধু বাংলাদেশের জন্য নয় সারা পৃথিবীর জন্য অনুকরণীয়-অনুস্মরণীয়। আমরা এখনো যদি দেখি বঙ্গবন্ধুর সেই আদর্শকে অনুসরণ করে আমরা চলছি জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। কোভিড-১৯-এ ও আমরা বঙ্গন্ধুর দেশপ্রেমকে অনুসরণ করছি। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এটা ফলো করে বাংলাদেশের মানুষ কোভিড-১৯ জয়লাভ করেছে। এবারের জন্মদিনে আমরা সারা বিশ্বে তুলে ধরবো বঙ্গবন্ধুর শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, সারা বিশ্বের জন্য একটি অনন্য অনুকরণীয় নেতৃত্ব।

অপর প্রেসিডিয়াম সদস্য শাজাহান খান বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিলো বলে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। পৃথিবীর মানচিত্রে একটি নতুন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল বলেই বাঙ্গালী জাতি পৃথিবীতে মাথা উঁচু করে দাড়িঁয়েছে, পৃথিবীর মানুষ বাঙ্গালী জাতিকে চিনতে ও জানতে পেরেছে। আজকে সেই ঐতিহাসিক দিন। আমাদের প্রত্যাশা বঙ্গবন্ধু আদর্শ ও দর্শন নিয়ে বাঙালি জাতি এগিয়ে যাবে। আমাদের হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দর্শন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সেই আদর্শ ও দর্শন এদেশের ক্ষুধা, দারিদ্র ও শোষণমুক্ত বাংলাদেশ।

প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যদি শতায়ু হতেন তাহলে এ দেশ অনেক আগেই উন্নতির স্বর্ণশিখরে পৌঁছে যেত। ৭৫ এর ১৫ আগষ্ট জাতির পিতাসহ স্বপরিবারে হত্যার মধ্যদিয়ে বাঙ্গালী জাতির পথ অরুদ্ধ হয়েছিলো। তারই কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অর্থনৈতিক যুদ্ধে মধ্য দিয়ে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার কাজে আপ্রান চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক আ.ফ.ম বাহাউদ্দিন নাসিম বলেন, বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে বড় অর্জন হলো স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। এই বাংলাদেশের সাড়ে ৭ কোটি মানুষের প্রান প্রিয় অবিসংবাদিত নেতা ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আমরা তারই নেতৃত্বে তারই আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে সারা বাংলাদেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে স্বাধীন আমরা করেছি। আজকের এদিন বাংলাদেশের মানুষের কাছে, সারা বিশ্বের নিপিড়িত-নিয্যাতিত মানুষের নেতা বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন। এই দিনটির জন্য আমরা ধন্য।

পরে এ দিবস উলক্ষে বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধ চত্ত্বরে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপি শিশুদের নিয়ে কেক কাটেন। পরে তিনি কেক শিমুদের খাইয়ে দেন। জাতির পিতা জন্মদিন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধ কমপ্লেক্স সাজানো হয়েছে নবরূপে। সমাধি সৌধ কমপ্লেক্সের শোভাবর্ধন করা হয়েছে। করা হয়েছে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ। পুরো মাজার কমপ্লেক্সে আলোকসজ্জ্বা করা হয়েছে। টুঙ্গিপাড়াসহ জেলাজুড়ে নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজনে ও গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসন স্কুল এন্ড কলেজের ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী অনুশা এঞ্জেল এর সভাপতিত্বে অনুষ্টিত শিশু সমাবেশে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপি। বিশেষ স্বাগত বক্তব্য রাখবেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: সায়েদুল ইসলাম।


error: Content is protected !!