বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১, ৯ বৈশাখ, ১৪২৮, ৯ রমজান, ১৪৪২
বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১

লাভজনক হওয়ায় গোপালগঞ্জের কৃষকেরা ঝুঁকছেন সূযর্মুখী ফুল চাষে, সৌন্দয্য উপভোগ করতে ছুটছে সৌন্দয্য প্রেমীরা

ফুলের সাথে ছবি তুলা নিয়ে ব্যস্ত ফুল প্রেমিরা

গোপালগঞ্জ : গোপালগঞ্জে টুঙ্গিপাড়া উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামের কৃষক জুয়েল শেখ (৩৫)। কৃষি কাজের সাথে করেন অন্য কাজও। সংসারে রয়েছেন মা, স্ত্রী, এক ছেলে ও ছোট ভাই। এবছর কৃষি বিভাগের পরামর্শে ও বিনা মূল্যে সার ও বীজ পাওয়ায় নিজের ১০ কাঠা জমিতে করেছেন সূযর্মুখী ফুলের চাষ। আর ফলনও হয়েছে ভাল। সূযর্মুখী ফুলের বীজ ভাঙ্গিয়ে যে তেল পাবেন তা দিয়ে সারা বছরে ভোজ্য তেলের চাহিদা পূরণ হবে তার।

এ ফুল চাষে সফলতা আসার পাশাপাশি স্বল্প খরচে অধিক লাভ হওয়ায় অন্য কৃষক ও বেকার যুবকদের মধ্যে বেড়েছে আগ্রহ। আগামীতে সূযর্মুখী ফুলের চাষ করতে চান তারা।

শুধু তেল উপাদনই নয়, ক্ষেতগুলো যেন সবুজের মাঝে এক টুকরো হলুদের গালিচা। দূরে কিংবা কাছে যেখান থেকেই চোখ পড়বে মনের সাথে জুড়িয়ে যাবো দু’নয়ন। এ সূযর্মুখী ফুলের সৌন্দয্য উপভোগ করতে প্রকৃতি প্রেমীরা ছুটছেন ক্ষেতেগুলোতে।

গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এবছর জেলায় ৬০ হেক্টর জমিতে সূযর্মুখী ফুলের আবাদ লক্ষ্যমাত্রা ধরা হলেও অর্জিত হয়েছে ৫৮ হেক্টর। আর এসব জমিতে ফুলও এসেছে ব্যাপকভাবে। সূযর্মুখী ফুল চাষে আগ্রহ বাড়াতে গোপালগঞ্জ জেলার ৫ উপজেলার ১ হাজার ৫’শ জন কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার দেয়া হয়েছে।

টুঙ্গিপাড়া উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতায় এ গ্রামের অধিকাংশ কৃষক এবছর সূযর্মুখী ফুলের চাষ করছেন। কৃষি বিভাগ বিনামুল্যে বীজ, সার ও পরামর্শ প্রদান করায় দিন দিন আগ্রহ বাড়ছে এ ফুল চাষে। এখন প্রতিটি ক্ষেত হলুদ ফুলে ছেয়ে রয়েছে। আর এক মাস পর এসব ফুল থেকে তৈলবীজ সংগ্রহ করবে কৃষকেরা। প্রতি বিঘা জমিতে সূযর্মুখীর ফল থেকে ৮ থেকে ১০ মন তৈলবীজ উৎপাদন হয়। পরে সেই বীজ থেকে উৎপাদন করা হবে ভোজ্য তেল। অন্যান্য তেল থেকে এ তেলে পুষ্টিগুন বেশি থাকায় বাজারে রয়েছে ব্যাপক চাহিদ। প্রতি কেজি তেল দু’শ থেকে আড়াই’শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ আয় থেকে সংসার চালানোর পাশাপশি অনেক কৃষক তাদের সারা বছরের খাবার তেল সংগ্রহ করে রাখছেন। স্বল্প খরচে অধিক লাভ হওয়ার পাশাপশি চাহিদা ও বাজার মূল্য থাকায় অনেক কৃষকের সাথে সাথে বেকার যুবকদের মধ্যে সূযর্মুখী ফুল চাষে আগ্রহ বেড়েছে।

শুধু লাভ বা খাবার তেলের যোগানই নয় সূযর্মুখী ফুলের হলুদ আভারন আকৃষ্ট করে তুলছে সৌন্দর্য প্রেমীদের। প্রতিদিনই সৌন্দর্য উপভোগ করতে ক্ষেতগুলোতে ভীড় করছেন সৌন্দর্য প্রেমীরা। আবার অনেকেই এ ফুলের সৌন্দর্য ধারন করে রাখছেন মোবাইল বা ক্যামেরায়।

টুঙ্গিপাড়া উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামের কৃষক জুয়েল শেখ আলো বলেন, বিনামূল্যে সার ও বীজ পাওয়ার পর ১০ কাঠায় মাত্র ৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। প্রতি বিঘায় ৮-১০ মন করে তৈলবীজ পাবেন তিনি। সেখান থেকে সারা বছরের ভোজ্য তেলের চাহিদা মিটবে তার। এতে একদিকে যেমন তেলের চাহিদা মিটবে অন্যদিকে অর্থিকভাবেও লাভবান হবেন তিনি।

একই গ্রামের কৃষক আবু বক্কর সিকদার বলেন, তিনি পড়াশোনা করেন। তাদের পৈত্রিক জমি পড়ে থাকায় পাড়াশোনার পাশাপাশি অল্প কিছু জমিতে এবার সূযর্মুখী চাষে করেছেন। ফলনও হয়েছে ভাল। বাজারে এ তেলের কেজি প্রতি দু’শ থেকে আড়াই’শ টাকা দাম থাকায় এ তেল বিক্রি করে তার ভালই লাভ হবে। আগামী বছরও ব্যাপকভাবে এ ফুলের চাষ করার কথা বলেন তিনি।

একই এলাকার শিক্ষার্থী মো: সাব্বির হোসেন বলেন, সূযর্মুখী ফুলের ব্যাপক ফলন দেখে আমি আবাব হয়ে গেছে। স্বল্প খরচে অধিক লাভ হওয়ায় আগামী বছর আমি এ ফুলের চাষ করবো। শুধু আমিই নই এলাকার অনেক কৃষক ও বেকার যুবকরা এ ফুল চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছেন।

একই এলাকার সিরাজ শরীফ, শরীফুল শেখ বলেন, তাদের গ্রাম এখন হলুদ সূযর্মুখী ফুলে ছেয়ে রয়েছে। প্রতিদিনই এ সূযর্মুখী ফুলের সৌন্দয্য উপভোগ করতে দূর-দূরান্ত থেকে সৌন্দয্য প্রেমীরা ছুটে আসছেন। অনেক সময় ক্ষেতে অবস্থান করে সৌন্দয্য উপভোগ করেন তারা। অনেকই আবার সৌন্দয্যের মূহূর্তগুলো মোবাইলে সেলফি তুলে বা ক্যামেরায় ধারন করে রাখছেন।

জেলা শহরের ডিসি রোড এলাকার বাসিন্দা কবিতা সাহা, শিশু সকাল সাহা বলেন, এ এলাকায় ব্যাপকভাবে সূযর্মুখী ফুলের চাষ হয়েছে জেনে আমরা এখানে এসেছি। যে দিকেই চোখ যায় সেদিকেই শুধু হলুদ আর হলুদ। এ যেন এক স্বগীয় সৌন্দয্য। এ ফুলের সৌন্দয্য দেখে আমরা মুগ্ধ হয়ে গেছি।

গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. অরবিন্দু কুমার রায় বলেন, লাভজনক সূযর্মুখী ফুল চাষে কৃষক ও বেকার যুবকদের মধ্যে আগ্রহ সৃষ্টি করতে বিনা মূল্যে বীজ ও সার দেয়ার পাশাপশি পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। এছাড়া এ ফুলের চাষ বাড়াতে কৃষকদের প্রশিক্ষণসহ নানা সহযোগীতাও করা হচ্ছে। সূযর্মুখীর তেলে অন্যান্য তেলের চেয়ে বেশি পুষ্ঠিগুন রয়েছে। সারা জেলায় সূযর্মুখী ফুলের চাষ ছড়িয়ে দিতে পরলে অন্য ভোজ্য তেলের উপর চাপ কমবে বলেও মনে করেন তিনি। #


error: Content is protected !!