শনিবার, ১৫ মে, ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮, ২ শাওয়াল, ১৪৪২
শনিবার, ১৫ মে, ২০২১

শরীয়তপুর সংখ্যালঘুদের বাড়িতে আগুন ও প্রতিমা ভাঙচুর

শরীয়তপুর সংখ্যালঘুদের বাড়িতে আগুন ও প্রতিমা ভাঙচুর

শরীয়তপুর: শরীয়তপুর সদর উপজেলায় ধর্মীয় সংখ্যালঘুর বাড়িতে দুর্বৃত্তরা একটি ঘরে আগুন দিয়েছে এবং এসয় প্রতিমা ভাঙচুর ঘটনা ঘটেছে। তাছাড়াও টাকা চেয়ে উড়ো চিঠি দিয়ে চাঁদা দাবি করছে দুর্বৃত্তেরা।
সোমবার গভীর রাতে উপজেলার পৌরসভা ৫ নং ওয়ার্ডে উত্তর বালুচরা বিজয় পরিমল চন্দ্রের বাড়ির খরের গাদায় আগুন লাগানো ও আরও চারটি ঘরে কেরোসিন ছিটিয়ে দিয়ে বাহির থেকে ছিটকেরি আটকিয়ে রাখা হয়। এ সময় বাড়ির শ্রী শ্রী স্বরসতী মন্দিরে ভাঙচুর এবং শ্রী শ্রী শীতল মন্দিরে কেরোসিন ঢেলে আগুন দেওয়ার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে, শীতল মন্দিরে চারটি উড়ো চিঠি রেখে গেছে দুর্বৃত্তরা।

সদর উপজেলার উত্তর বালুচড়া এলাকার পরিমল চন্দ্রের বাড়িতে সোমবার গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে বলে পালং মডেল থানার ওসি মোহাম্মাদ আক্তার হোসেন জানান।

তবে কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেনি পুলিশ।

শরীয়তপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনদীপ ঘরাই বলেন, পরিমল চন্দ্রের বাড়ির লোকজন মঙ্গলবার রাতে খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। এরপর রাত ১২টার দিকে কাঠের ঘরে আগুন জ্বলতে দেখে নিজেদের চেষ্টায় তা নেভান তারা। এ সময় ঘরে থাকা কিছু কাঠ পুড়ে যায়। পরে বাড়ির পাশে একটি সরস্বতীর প্রতিমার ডান হাত ভাঙা অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন তারা।

এ ঘটনায় পরিমল বাদী হয়ে পালং মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন বলে জানান ইউএনও।

পরিমল বলেন, “আমার বাড়িতে রাতের অন্ধকারে কে বা কারা কাঠের ঘরে আগুন দেয়। এবং একটি সরস্বতী মূর্তি ভাঙচুর করে।”

বাড়িতে আগুন ও প্রতিমা ভাঙচুরের বিষয়ে উত্তম চন্দ্র চন্দ বলেন, রাতে আমরা ঘুমিয়ে ছিলাম, আগুনের টের পেয়ে বাইরে বের হয়ে দেখি আমাদের ঘরে আগুন লাগানো, প্রতিমা ভাঙা। পরে সবাইকে জানাইলাম। শীতলা মন্দিরে গিয়ে চারটি চিঠি পাই, চিঠিতে টাকা চাওয়া হয়েছে এবং দেশ ছেড়ে চলে যেতে বলা হয়েছে। আমি এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে বিচার চাই।

মামলাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান ওসি।


error: Content is protected !!