মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই, ২০২১, ১২ শ্রাবণ, ১৪২৮, ১৬ জিলহজ, ১৪৪২
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই, ২০২১

কি শাস্তি অপেক্ষা করছে সাকিবের জন্য

কি শাস্তি অপেক্ষা করছে সাকিবের জন্য

ঢাকা: বিতর্কিত কাণ্ডে জড়িয়ে আবারও শিরোনামে বাংলার মান, বাংলার জান সাকিব আল হাসান। ঐতিহ্যবাহী দুই ক্লাব আবাহনী-মোহামেডানের লড়াইয়ে মোহামেডান জয় পেলেও তোলপাড় ফেলে দেয় সাকিবের বিতর্কিত ঘটনা। শুক্রবার আবাহনীর ব্যাটিংয়ের সময় দুই দফা মেজাজ হারিয়ে ‘অক্রিকেটীয় আচরণ’ করে বসেন সাকিব। এমন আচরণে বড় শাস্তিই হয়তো অপেক্ষা করছে সাকিবের জন্য।

শুক্রবার রাতেই ম্যাচের দুই আম্পায়ার ইমরান পারভেজ ও মাহফুজুর রহমান প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন ম্যাচ রেফারি মোরশেদুল আলম চৌধুরীর কাছে। এরপর সাকিবের কাছ থেকে ঘটনার বিস্তারিত শুনবেন ম্যাচ রেফারি। তারপরই সাকিবের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত আসবে। সেই সিদ্ধান্ত আজই (শনিবার) জানাতে পারে বিসিবি। কেননা রবিবার ওল্ড ডিওএইচএসের বিপক্ষে মোহামেডানের ম্যাচ রয়েছে।

বিসিবি কিংবা ম্যাচ রেফারির সিদ্ধান্ত সামনে না এলেও এটা নিশ্চিত শাস্তি পাচ্ছেন সাকিব। ঘোষণা আসার আগে সাকিবের ‘অপরাধ’ বিবেচনায় নিয়ে তার শাস্তির একটা ধারণা পাওয়া যায়। যাতে দুই থেকে পাঁচ ম্যাচ নিষিদ্ধ হতে পারেন বাঁহাতি অলরাউন্ডার, সঙ্গে আর্থিক জরিমানা।

আইসিসির আইন অনুযায়ী, সাকিবের বিরুদ্ধে আচরণবিধির ‘লেভেল টু’ লঙ্ঘনের অভিযোগ এলে তাকে ২ ম্যাচ নিষিদ্ধ ও আর্থিক জরিমানা করা হতে পারে। অন্যদিকে ম্যাচ রেফারি আচরণবিধির ‘লেভেল ফোর’ ভঙ্গের অভিযোগ আনলে মোহামেডান অধিনায়ক ৫ ম্যাচ নিষিদ্ধ ও বড় অঙ্কের আর্থিক জরিমানার মুখে পড়বেন।

সিসিডিএমের চেয়ারম্যান কাজী ইনাম আহমেদ আগের দিন বলেছিলেন, ‘ম্যাচ রেফরি এবং যারা ম্যাচ পরিচালনা করেন- আম্পায়ার্স, তারা একটা রিপোর্ট দেবেন। আমরা আশা করছি আজ (শুক্রবার) তাদের রিপোর্ট আসবে। সব বাইলজে আছে, কী হলে কী হবে। আপনি বাইলজ ভাঙলে বা কোনও নিয়ম ভঙ্গ করলে আমরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।’

ঘটনার পর শুক্রবার নিজের ফেসবুক পেজের মাধ্যমে দুঃখ প্রকাশ করার পাশাপাশি ক্ষমাও চেয়েছেন সাকিব, ‘প্রিয় ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীরা, যারাই আজকের ম্যাচে আমার আচরণ দেখে কষ্ট পেয়েছেন, বিশেষ করে ঘরে বসে যারা খেলা দেখেছেন, তাদের কাছে আমি দুঃখ প্রকাশ করছি এবং ক্ষমা প্রার্থনা করছি। আমার মতো অভিজ্ঞ একজন ক্রিকেটারের কাছ থেকে এমনটা মোটেও কাম্য নয়, কিন্তু মাঝে মাঝে প্রতিকূল পরিবেশে এমনটা হতেই পারে। এমন ভুলের জন্য সব দল, কর্তৃপক্ষ, টুর্নামেন্ট সংশ্লিষ্ট সব কর্মকর্তা ও আয়োজক কমিটির কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। আশা করি, ভবিষ্যতে এমন কোনও কাজে আমি আর জড়াবো না। সবার জন্য ভালোবাসা।’

আবাহনীর ইনিংসের পঞ্চম ওভারের শেষ বলে মুশফিকুর রহিমকে আউট না দেওয়ায় সাকিব স্টাম্প লাথি মেরে মাটিতে ফেলে দেন। পরের ওভারে আম্পায়ার বৃষ্টির কারণে মাঠ কাভার দিয়ে ঢাকার নির্দেশ দিলে আরও ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন তিনি। এবার তিনটি স্টাম্প উপড়ে আছাড় মারেন। ওই ঘটনার পর মাঠের বাইরেও বিষয়টা নিয়ে বেশ কিছু সময় উত্তেজনা বিরাজ করেছে।


error: Content is protected !!